বেগম জিয়াকে বর্তমান সরকার ভয় পায় -কামাল ইবনে ইউসুফ

নিজস্ব প্রতিবেদক, আমার ফরিদপুর।

বিএনপির ভাইস চেয়ারপারসন ও সাবেক মন্ত্রী চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ বলেছেন, বেগম জিয়াকে বর্তমান সরকার ভয় পায়। এ কারণে তারা অত্যন্ত সুকৌশলে চক্রান্ত করে নির্বাচনের আগে ভিত্তিহীন মামলায় অন্যায়ভাবে সাজা দিয়ে একটি নির্জণ পরিত্যক্ত কারাগারে তাকে কারাবন্দি করে রেখেছে। তারা জানে বেগম খালেদা জিয়া রাজপথে নেমে আসলে আবার সেই ১৯৯০ সালের মত জনবিস্ফোরণ ঘটবে।

বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার কারামুক্তি ও শারীরিক সুস্থ্যতা কামনা এবং বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক শহিদুল ইসলাম বাবুলের পিতা মরহুম সিরাজুল ইসলাম খান এর আত্মার মাগফেরাত কামনার আজ ৭ জুন বৃহস্পতিবার সন্ধায় এক ইফতার মাহফিল পূর্ব আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ একথা বলেন। ফরিদপুরের নগরকান্দা উপজেলার তালমা ইউনিয়নের মহিলা রোডে শহিদুল ইসলাম খান বাবুলের পৈতৃক বাড়ির প্রাঙ্গণে আয়োজিত এ সভায় সভাপতিত্ব করেন সালথা উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি আতিয়ার কবির।

কামাল ইবনে ইউসুফ বলেছেন, সমগ্র দেশের মানুষ দেখেছে সর্বোচ্চ আদালত মুক্তি দিলেও ভোটবিহীন অবৈধ সরকারের অনিচ্ছায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া মুক্তি পাচ্ছেন না। বর্তমান অবৈধ সরকার জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়নি, তাই জনগণে প্রতি তাদের কোনও দায়িত্ব ও দায়বদ্ধতা কাজ করে না। একারনে দেশে এখন চলছে বিনা বিচারে হত্যার মহোৎসব। রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে প্রণীত মাদকবিরোধী অভিযানের নামে তালিকা করে বিনা বিচারে বিএনপি নেতাকর্মীদের হত্যা করছে আওয়ামীলীগ। গুম-খুন করে এই সরকার এখন তাদের ক্ষমতা পোক্ত করতে চায়। আবারও তাদের বিনা ভোটের সরকার গঠন করার জন্য গত নয় দশ বছর যাবত এভাবেই তারা বিরোধী নেতাকর্মীদের হত্যা করে চলেছে। এজন্য আমাদের সামনে এখন একটি মাত্র পথ, সেটি হলো বেগম জিয়াকে কারামুক্ত করে গণতান্ত্রিকভাবে ক্ষমতাসীন সরকারকে পরাজিত করার মাধ্যমে বিদায় করে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করা। সেজন্য সবাইকে উঠে দাঁড়াতে হবে, অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করতে হবে এবং দেশের মানুষ যাতে স্বস্তি নিতে পারে, মানুষকে যাতে সুশাসন দিতে পারি ঐক্যবদ্ধভাবে সেই আন্দোলন করতে হবে।

এসময় দোয়া ও ইফতার মাহফিলের আয়োজক শহিদুল ইসলাম বাবুল বলেন, দেশ এখন চরম দুঃসময় অতিক্রম করছে উল্লেখ করে বিএনপি এ নেতা বলেন, 'বর্তমান সরকারের আমলে আমাদের অনেক নেতাকর্মী হারিয়েছি। দলের এমন কোনো নেতা নেই যে, তার বিরুদ্ধে কোনো মামলা হয়নি। গত দশ বছরে সারাদেশে বিএনপির ১১ লাখ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে ৭৮ হাজার মামলা হয়েছে বলে অভিযোগ করে তিনি বলেন, শত শত নেতাকর্মীকে গুম করা হয়েছে। দেশজুড়ে এক আতঙ্ককজনক অবস্থা বিরাজ করছে। দুঃসহ এই অবস্থা থেকে পরিত্রাণ পেতে হলে গণআন্দোলনের মাধ্যমে দেশের মানুষের অধিকার ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় বিএনপির নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ হয়ে এগিয়ে আসতে হবে। তাহলেই আমাদের জয় হবে।

শহিদুল ইসলাম বাবুল বলেন, 'ক্ষমতাসীনরা হয়তো ভুলে গেছে গ্রেফতার ও মামলা দিয়ে কোনো রাজনৈতিক দলকে ধ্বংস করা যায় না। বাংলাদেশের মানুষ তা বারবার প্রমাণ করেছে। জনগণই তাদের অধিকার ফিরিয়ে আনতে গণআন্দোলনের মধ্য দিয়ে তাদের দাবি আদায় করবে। জনগণের অধিকার ফিরিয়ে আনতে এবং গণতন্ত্রকে রক্ষা করতে হলে সবাইকে আন্দোলনে ঝাপিয়ে পড়তে হবে। ফরিদপুরের সালথা ও নগরকান্দা থেকেই তারেক জিয়ার নেতৃত্বে আন্দোলনের ডাক দেয়া হবে। এ জন্য এখন থেকেই সবাইকে সে আন্দোলনের জন্য প্রস্তুত হতে হবে।’

সভায় আরো বক্তব্য দেন কামাল ইবনে ইউসুফ তনয়া বিএনপি নেত্রী চৌধুরী নায়াব ইউসুফ আহমেদ, ফরিদপুর জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি এএফএম কাইয়ুম জঙ্গি, জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি জাফর হোসেন বিশ্বাস, জেলা বিএনপির সাংগঠনিক রশিদুল ইসলাম লিটন, জেলা যুবদলের সাধারণ সম্পাদক একে কিবরিয়া স্বপন, ড্যাব সভাপতি ডাঃ শামিম, ফরিদপুর সদর উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান ও জেলা ছাত্রদলের সভাপতি বেনজির আহমেদ তাবরীজ, জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক মুরাদ হোসেন মুরাদ, শহর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা মিরাজ, জেলা বিএনপির বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক মিজানুর রহমান মিনান, জেলা ছাত্রদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি মোঃ সেলিম হোসেন (ভিপি), জেলা ছাত্রদলের সাংগঠনিক সম্পাদক নাহিদুল ইসলাম নাহিদ, ফরিদপুর শহর ছাত্রদলের সভাপতি গাজী মাহবুব, শহর ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক শাহারিয়ার হোসেন শিথিল।

এসময় সভায় আরো বক্তব্য দেন নগরকান্দা বিএনপির সভাপতি অ্যাডভোকেট লিয়াকত হোসেন খান বুলু, তালমা ইউনিয়ন সভাপতি ডাঃ আঃ সাত্তার চৌধুরী, নগরকান্দা যুবদলের যুগ্ন আহ্বায়ক ফায়েকুজ্জামান লেলিন, নগরকান্দা উপজেলা ছাত্রদলের সভাপতি সাইফুল আলম শান্ত, সাধারণ সম্পাদক শাহিনুজ্জামান শাহিন, শালথা থানা ছাত্রদল সভাপতি হাফিজুর রহমান, ছাত্রদল সহ সম্পাদক ইমরান নাজির প্রমুখ। সভা শেষে বিশেষ মোনাজাত পরিচালনা করা হয়।

প্রতিষ্ঠাতা : মরহুম সাংবাদিক আরিফ ইসলাম।
প্রকাশক: ওয়াহিদ সোহেল।
ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : ইবনে সৈয়দ পিন্টু।
নির্বাহী সম্পাদক : রাজিব খান। বার্তা সম্পাদক : রুমন রহমান
যোগাযোগ : ১০৭/১, কাকরাইল, ঢাকা-১২১৭।
ইমেইল : AmarFaridpur@gmail.com